শিরোনাম

প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটিতে নবীনবরণ অনুষ্ঠান।

গত ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২ বিকাল ৩টায় বারিধারার ইন্ট্রাকো কনভেনশন হল এ বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটির সেমিস্টার-২ এর নবাগত ছাত্র- ছাত্রীদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়েছে। সকলের সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশন দিয়ে শুরু হয় নবীনবরণ অনুষ্ঠান।
প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. আবুল লাইস এমএস হক (ভারপ্রাপ্ত) এর সভাপতিত্বে নবীন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে মোটিভেশনাল বক্তব্য রাখেন টেন মিনিট স্কুলের ফাউন্ডার ও সিইও আয়মান সাদিক।
নবীনবরণ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইউনিভার্সিটি রেজিস্ট্রার মোঃ রহুল আমিন, ইউনিভার্সিটি এডভাইজার মেজর জেনারেল কাজী আশফাক আহমেদ (অব.), ইংরেজি ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান মো: হাবীবুল্লাহ, বিজনেস ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান মো: মুজাক্কেরুল হুদা, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান ড. মোঃ সুলতানুল ইসলাম।
সম্মানিত বক্তাগণ শিক্ষার্থীবৃন্দকে ভবিষ্যত সুনাগরিক হিসাবে গড়ে উঠতে এবং নলেজ বেজড সোসাইটি গড়ে দেশের উন্নয়ন ও সমাজসেবা মূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত হবার জন্য উৎসাহ প্রদান করেন। এছাড়া নবীনবরণ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন প্রোগ্রাম ডিরেক্টরস, শিক্ষক- শিক্ষিকা, কর্মকর্তা-কর্মচারী, ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ।
উল্লেখ্য যে, অনুষ্ঠানটির শেষাংশে প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটির কালচারাল ক্লাবের উদ্যোগে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পরিবেশনা ও আকর্ষনীয় র‌্যাফেল-ড্র এর মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হয়।

আরও দেখুন

চুয়েটে হুয়াওয়ের ক্যাম্পাস রিক্রুটমেন্ট অনুষ্ঠিত

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) ক্যাম্পাস রিক্রুটমেন্টের আয়োজন করেছে বিশ্বের অন্যতম তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটরে অনুষ্ঠিত এমসিকিউ ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে সম্প্রতি এ রিক্রুটমেন্ট সম্পন্ন করা হয়। চুয়েটের সিএসই, ইইই ও ইটিই বিভাগের প্রায় ২০০ শিক্ষার্থী এতে অংশগ্রহণ করে। সেখান থেকে নির্বাচিত শিক্ষার্থীরা হুয়াওয়ের সাথে কাজ করার সুযোগ পাবে। এই ইভেন্ট পরিচালনা করেন হুয়াওয়ে সাউথ এশিয়ার সিনিয়র এইচআর ম্যানেজার মো. ফারা নেওয়াজ, এইচআর ম্যানেজার ইফতেখার রহমান ও এইচআর এক্সিকিউটিভ মো. খালিদ হুসাইন। এ সময় চুয়েটের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. জামাল উদ্দীন আহাম্মদ উপস্থিত ছিলেন। এ বিষয়ে মো. ফারা নেওয়াজ বলেন, “বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা অনেক মেধাবী এবং তাদের মেধার সঠিক পরিচর্যা করা প্রয়োজন। এ কারণেই প্রয়োজনীয় দক্ষতা, উপযুক্ত কর্মপরিবেশ ও সুযোগ-সুবিধা দেয়ার মাধ্যমে তাদের মেধাকে সমৃদ্ধ করার জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরিতে হুয়াওয়ে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। সম্পূর্ণভাবে সংযুক্ত ও বুদ্ধিবৃত্তিক বাংলাদেশ গড়ার যে লক্ষ্য হুয়াওয়ের রয়েছে, সেটিকে এগিয়ে নিতে এসব শিক্ষার্থীদের মাঝে যে আগ্রহ রয়েছে, তা প্রশংসনীয়। বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মের জন্য এই ধরনের কাজের ধারাবাহিক সুযোগ তৈরি ও এটিকে আরো সম্প্রসারণ করার জন্য আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।” অধ্যাপক ড. জামাল উদ্দীন আহাম্মদ বলেন “হুয়াওয়ের এই ক্যাম্পাস রিক্রুটমেন্ট আয়োজন আমাদের শিক্ষার্থীদের জন্য নতুন সুযোগ তৈরি করলো। এর মধ্যে দিয়ে আমাদের যেসব শিক্ষার্থীর নতুন কিছু করার উচ্চাকাঙ্খা আছে, তারা স্বপ্ন পূরণের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *